বা়ংলার প্রথম পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল সাহিত্য পত্রিকা

তৈমুর খান এর দুটি কবিতা

সর্বনাশ

 

খুব ভাল ভাল অস্ত্র তৈরি হচ্ছে এখন

অস্ত্র চালনার ট্রেনিংও হচ্ছে

কী করে মানুষ মারা হবে

তাও বলে দেওয়া হচ্ছে

 

আমাদের রাষ্ট্রের নাম সর্বনাশ

আমাদের শাসকের নাম সর্বনাশ

আমাদের পুলিশের নাম সর্বনাশ

 

কী করে মরতে হয়

আমরা এখন তার অভ্যাস করছি

কী করে চিৎকার করতে হয়

আমরা এখন তার অভ্যাস করছি

 

মরার সময় কাঁদব নাকি, না প্রতিবাদ জানাব

চিৎকার করব নাকি, না নিঃশব্দে মরে যাব

এইসব ভাবতে ভাবতে আমাদের দিনগুলি

আমাদের রাতগুলি

এখন কাপুরুষের দিন

এখন কাপুরুষের রাত

আতঙ্ক এসে ধর্ষণ করে যাচ্ছে আমাদের

 

জব্দ

 

এখন তলায় তলায় জব্দ আসছে

জব্দ এসে জব্দ করবে আমাদের

সাইকেল চালিয়ে বারো ক্রোশ যেতে যেতে

রাস্তার ধারে কারও কাছে জল চাইতে পারব না

কারও বাগানের পোষা ময়ূরের নাচ দেখার জন্য দাঁড়াতে পারব না

রাস্তার ধারে কলা গাছ নুয়ে থাকলে

বলতে পারব না সরিয়ে নিন

হাওয়া কোন দিক থেকে উঠবে

কোন দিক দিয়ে বয়ে যাবে

আমরা কেউ জানি না

 

এখন আমাদের ঠোঁট নষ্ট হয়ে গেছে

এখন আমাদের সব কথা পচে গেছে

এখন আমরা অন্ধকারে গর্ত খুঁড়ে খুঁড়ে

নিজেদের সুরক্ষার গুহা বানিয়ে নিচ্ছি

মৃত পূর্বপুরুষদের হাড়ে বানিয়ে নিচ্ছি জানালা-কপাট

এখন আমরা কে কোন জন্তু

তা আমাদের শিকার কৌশলেই বোঝা যাবে

 

চারিদিকেই জব্দ করা দিন

চারিদিকেই জব্দ করা রাত

আমাদের কলমটিও এখন তির-ধনুক!

অঙ্কন : দেবাশীষ সাহা

Comments are closed.